Sale!

ঘি

৳ 1,950.00 ৳ 1,750.00

ঘিএরগুনাগুন:

মূল্য: ১৭৫০.০০ টাকা(১কেজি), ৯০০.০০ টাকা(৫০০গ্রাম)

 ঘি দুগ্ধজাত খাবার।ঘি নাম শুনলেই যেন মনটা ভরে যায়।গরম ভাতে একটু ঘি হলেই যেন পুরো ভাতটা নিমিষেই খাওয়া হয়ে যায়।ভাতের সঙ্গে ঘি মিশিয়ে খেলে শরীরে দীর্ঘক্ষণ শক্তি থাকে। ঘি এর ব্যবহার সেই প্রাচীনকাল থেকেই চলে আসছে। বিশেষ কিছু খাবারের স্বাদ বাড়াতে যেমন কাচ্চি বিরিয়ানীসহ আরো অন্যান্য খাবার তৈরিতে ঘিয়ের প্রয়োজন হয়। ঘি খেতে তো অনেকেই পছন্দ করেন আবার অনেকেই অপছন্দ করেন। কিন্তু অনেকেই জানেন না ঘিয়ের উপকারিতা সম্পর্কে। ঘি তখনই শরীরের ক্ষতি করে, যখন তা অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া হয়। তাই ঘিয়ের উপকারিতা পাওয়ার জন্য নিয়ন্ত্রণ মেনে ঘি খেতে হবে। তবে তার আগে জেনে নেওয়া যাক ঘিয়ের উপকারিতা গুলো কি কি-

ভারতের প্রখ্যাত পুষ্টিবিদ সন্ধ্যা গুগনানির মতে, শীতকালই ঘি খাওয়ার উপযুক্ত সময়। এ সময় এটি সহজে হজম হয় ও শরীর গরম রাখে। এতে ভিটামিন এ, ডি, ই ও কে আছে।

দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখার পাশাপাশি পেশি সুগঠিত রাখতে ঘি কার্যকর। এ ছাড়া শীতে ত্বক শুষ্ক হয়ে যাওয়া ঠেকাতে পারে ঘি। প্রতিদিন সকালে এক বা দুই চা-চামচ ঘি খাওয়া যেতে পারে। এরপর গ্রিন টি বা সাধারণ চা ও কফি খেলে উপকার পাওয়া যায়।

ঘি অবশ্য অল্প পরিমাণে খাওয়াই ভালো। যাঁদের কোলস্টেরলের সমস্যা আছে তাঁদের ঘি এড়িয়ে চলা উচিত।

 

প্রতিদিন কেন এক চামচ ঘি খাবেন:

১. ত্বকের শুষ্কতা দূর করে তা আর্দ্র রাখে।

২. ভিটামিন এ থাকায় এটি চোখের জন্য ভালো। গ্লুকোমা রোগীদের জন্য উপকারী। এটি চোখের চাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

৩. ঘি খেলে যে হরমোন নিঃসরণ হয়, এতে শরীরের সন্ধিগুলো ঠিক থাকে।

৪. এটি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ বলে অন্য খাবার থেকে ভিটামিন ও খনিজ শোষণ করে শরীরকে রোগ প্রতিরোধে সক্ষম করে তোলে।

৫. পোড়া ক্ষত সারাতে কাজ করে ঘি। আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে আছে ঘি খেলে মস্তিষ্কের ধার বাড়ে ও স্মৃতিশক্তি বাড়ে।

আরোঅনেকগুনাগুনেরমধ্যেআছে: 

১। হাড়ের জন্য

২। চুল পড়া প্রতিরোধ করে

৩। উপকারি কোলস্টেরল

৪। স্মৃতিশক্তি বাড়ায়/ব্রেন টনিক হিসেবে কাজ করে

৫। কনজুগেটেড লিনোলেক অ্যাসিড-

৬। ওজন কমায় ও এনার্জি বাড়ায়

৭। হজম ক্ষমতা বাড়ায়

৮। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

৯। ক্ষিদে কমায়

১০। পজিটিভ ফুড

১১।ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়

১২। ত্বকের প্রদাহ কমায়

১৩। ক্যান্সার রোগকে দূরে রাখে

১৪। চোখকে ভালো রাখে

১৫।আরও কিছু উপকারিতা

১৭।অ্যালার্জি কমায়

১৮। প্রদাহরোধী:

১৯। ভিটামিনের উৎস

২০।অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান:

২১। নষ্ট হয় না

২২।স্ফুটনাঙ্ক

২৩।কোষ্ঠকাঠিন্য:

২৪। স্বাদ

5। ভিটামিন

২৬।রূপচর্চা

২৭।রাগ প্রশমন

২৮।মারাত্মক রোগের ঝুঁকি কমায়:
২৯।কোষ্ঠকাঠিন্যে

৩০।মানসিক বিষক্রিয়াগত মাথাব্যথা মুছে ফেলে:

 

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “ঘি”

Your email address will not be published. Required fields are marked *